স্বামীর আনুগত্য বনাম অবাধ্যতা

By | Sun 15 Dhul Hijjah 1442AH || 25-Jul-2021AD

জাহান্নামের অধিকাংশ হবে নারী। কারণ দুইটি।

এক, তারা অযথা অভিশাপ দেয়।

দুই, স্বামীর অবাধ্য হয়।

[ মুসনাদে আহমাদঃ৩৫৬৯]


নবীজি ﷺ বলেছেন, “যে মহিলা পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়বে, রমযানে রোযা রাখবে, লজ্জাস্থান হেফাজত করবে, আর স্বামীর আনুগত্য করবে, কিয়ামতের দিন তাকে বলা হবে তুমি যে দরজা দিয়ে ইচ্ছে জান্নাতে প্রবেশ করতে পার”। [ আত তারগীব ওয়াত তারহীবঃ৩/৯৭]


হযরত আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞাসা করা হল, নারীদের মধ্যে কোন নারী উত্তম। তিনি বললেন, স্বামী যাকে দেখলে আনন্দবোধ করে, যাকে আদেশ করলে আনুগত্য করে, স্ত্রীর বিষয়ে এবং সম্পদের ব্যাপারে স্বামী যা অপছন্দ করে তা থেকে বিরত থাকে।-মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ৭৪২১; সুনানে নাসায়ী, কুবরা, হাদীস : ৮৯৬১


হুসাইন ইবনে মুহসিন থেকে বর্ণিত, তাঁর এক ফুফু নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর কাছে কোনো প্রয়োজনে এসেছিলেন।
তাঁর প্রয়োজন পূর্ণ হলে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, “তুমি কি বিবাহিতা?”
তিনি বললেন, ”জ্বী হাঁ।”
নবীজী বললেন, ”তুমি স্বামীর সাথে কেমন আচরণ করে থাক?”
তিনি বললেন, ”আমি একেবারে অপারগ না হলে তার সেবা ও আনুগত্যে ত্রুটি করি না।”
তখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ”স্বামীর সাথে তোমার আচরণ কেমন তা ভেবে দেখ। কারণ স্বামীই তোমার জান্নাত কিংবা জাহান্নাম।
-মুসনাদে আহমদ খ. ৪, পৃ. ৩৪১৩; খ. ৬, পৃ. ৪১৯

হাদীস শরীফে এসেছে যে, ‘তার কোনো নামায কবুল হয় না, কোনো নেক আমল উপরে উঠানো হয় না যতক্ষণ স্বামী তার প্রতি সন্তুষ্ট না হবে।
-সহীহ ইবনে হিববান হাদীস ৫৩৫৫
Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*