নাবালেগের যাকাত বিষয়ক প্রশ্ন

By | Wed 6 Ramadan 1441AH || 29-Apr-2020AD

প্রশ্ন ১৬৪৮: আমার ছোট দুটি মেয়ে আছে। একজনের বয়স চার বছর। আরেকজনের বয়স ছয় বছর। মোট আট ভরি স্বর্ণ দিয়ে দুই মেয়ের জন্য আমি দুটি গলার হার এবং দুই জোড়া কানের দুল তৈরি করেছি। তারা যেহেতু এখনো ছোট তাই তাদেরকে হস্তান্তর করিনি। বর্তমানে সেগুলো আমার কাছেই আছে। তবে আমার স্ত্রী এবং দুই ছেলেকে বলে রেখেছি যে, অলঙ্কারগুলোর মালিক দুই মেয়ে। অন্য কেউ নয়। জানতে চাই, হস্তান্তর না করার কারণে এগুলো কি আমার মালিকানায় রয়ে গেছে? আমার কি এগুলোর যাকাত আদায় করতে হবে?

উত্তর: প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে অলঙ্কারগুলোর মালিক আপনার দুই মেয়েই।  কেননা পিতা তার নাবালেগ সন্তানকে শুধু মৌখিকভাবে কোনো কিছু দিলেই সন্তান ঐ বস্ত্তর মালিক হয়ে যায়। এর জন্য নাবালেগদের হস্তগত করা আবশ্যক নয়। অতএব আপনাকে এগুলোর যাকাত আদায় করতে হবে না। আর এখন ঐ মেয়েরাও যেহেতু নাবালেগ তাই তাদের উপরও এখন সেগুলোর যাকাত আদায় করা ফরয নয়। তবে তারা যখন বালেগ হবে তখন অলঙ্কারগুলো যদি অন্যান্য সম্পদের সাথে মিলে নেসাব পরিমাণ হয়, তাহলে নিয়মানুযায়ী মেয়েরা এর যাকাত আদায় করবে।

-মুয়াত্তা ইমাম মালেক ৩২২; আসসুনানুল কুবরা ৬/১৭০; জামিউ আহকামিস সিগার ১/৪৯, ২৫০; ফাতাওয়া খানিয়া ৩/২৭৯; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৫৯; আলবমাবসূত, সারাখসী ১২/৫১; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৭২

মাসিক আল-কাউসারের সরাসরি লিংক


প্রশ্ন ২৮৯০: আযাদের বয়স সাত বছর। সে গত বছর উত্তরাধিকার সূত্রে নগদ দুই লক্ষ টাকার মালিক হয়েছে। প্রশ্ন হল, তার উক্ত টাকার যাকাত দিতে হবে কি?

উত্তর: না, আযাদ যেহেতু নাবালেগ তাই সম্পদ থাকলেও তার উপর যাকাত ফরয নয়। কেননা যাকাত ফরয হওয়ার জন্য সম্পদের মালিক হওয়ার পাশাপাশি প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়াও শর্ত।

-মুসান্নাফ আবদুর রাযযাক ৪/৬৯; বাদায়েউস সানায়ে ২/৭৯; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৫৮; আলবাহরুর রায়েক ২/২০২; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৭২

মাসিক আল-কাউসারের সরাসরি লিংক


প্রশ্ন ৪৪৪৪. কিছুদিন আগে আট-দশ বছরের এক শিশু আব্বুর কাছে এসে তার চিকিৎসার জন্য সাহায্য চায়। তাকে সহযোগিতার জন্য তার এক আত্মীয়ও তার সাথে ছিল। আব্বু তার করুণ অবস্থা দেখে খুব কষ্ট পান এবং তার চিকিৎসার জন্য বড় অংকের যাকাতের টাকা দেওয়ার ইচ্ছা করেন। কিন্তু পাশে বসা আমার বড় মামা বাধা দিয়ে বলেন, নাবালেগ বাচ্চাকে যাকাত দিলে যাকাত আদায় হয় না। জানার বিষয় হল, তার এ কথাটি কি ঠিক?

উত্তর: অবুঝ নাবালেগ শিশুকে যাকাত দিতে হলে অভিভাবকের মাধ্যমে দিতে হয়। অভিভাবক সাথে না থাকলে কিংবা তার হস্তগত না হলে শুধু শিশু বাচ্চার হাতে দেওয়া যথেষ্ট হবে না। প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে শিশুটির সাথে যেহেতু তার একজন অভিভাবক ছিল এবং শিশুটিও দশ বছর বয়সী  আর এ বয়সের শিশুরা বর্তমানে বুঝমান হয়ে যায় তাই তাকে যাকাত দেওয়া জায়েয হত। এক্ষেত্রে আপনার বড় মামার বাধা দেওয়া ঠিক হয়নি।

-আলমুহীতুল বুরহানী ৩/২১৪; আলমুলতাকাত ফিল ফাতাওয়া পৃ. ৭৮; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৪২; আলবাহরুর রায়েক ২/২০১; রদ্দুল মুহতার ২/৩৪৪

মাসিক আল-কাউসারের সরাসরি লিংক

 

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*