খানা বিষয়ক দুআ

By | Sun 22 Rajab 1439AH || 8-Apr-2018AD

০১। খাওয়ার পূর্বের দুআ

بِسْمِ اللهِ أَوَّلَه‘ وَا ٰخِرَةَ.

আইশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ ( বলেছেনঃ যখন তোমাদের কেউ খাবার খায়, তখন সে যেন বিসমিল্লাহ বলে। যদি সে খাবার গ্রহণের শুরুতে বিসমিল্লাহ বলতে ভুলে যায়, তবে সে যেন পরে বলেঃ (অর্থ)- আমি আল্লাহ্‌র নামে খাওয়া শুরু করছি প্রথমে এবং শেষে। [আবু দাউদ ৩৭২৫ ইফা]

—————————————–

যে কোনো খাবারের সময়:        اَللَّهُمَّ بَارِكْ لَنَا فِيهِ وَأَطْعِمْنَا خَيْرًا مِنْهُ

দুধের বেলায়:                  اَللَّهُمَّ بَارِكْ لَنَا فِيهِ وَزِدْنَا مِنْهُ

ইবন আব্বাস (রা) থেকে বর্ণিত তিনি বলেনঃ রাসুলুল্লাহ (ﷺ)  এর সঙ্গে আমি ও খালিদ ইবন ওয়ালীদ (রা) মায়মুনা রাদিয়াল্লাহু আনহা এর ঘরে গেলাম। তিনি আমার কাছে একটি দুধ ভর্তি পাত্র নিয়ে এলেন। রাসুলুল্লাহ (ﷺ)  দুধ পান করলেন। আমি ছিলাম তার ডান পার্শ্বে আর খালিদ ছিলেন তার বাম পার্শ্বে। নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে বললেনঃ এখন তা পান করার অধিকার তো তোমার তবে ইচ্ছা করলে তুমি খালিদ কে প্রধান্য দিতে পার। আমি বললামঃ আপনার পানের অবশিষ্টের ব্যপারে আমি কাউকে অগ্রাধিকার দিতে প্রস্তুত নই। এরপর রাসুলুল্লাহ (ﷺ)  বললেনঃ কাউকে আল্লাহ তা’আলা কোন খাদ্য আহার করালে সে যেন বলেঃ

(অর্থ)- হে আল্লাহ! তুমি বরকত দাও এতে আর এর চেয়েও ভাল কিছু আমাদের আহার করাও।

আর যাকে আল্লাহ তা’আলা দুধ পান করান সে যেন বলেঃ

(অর্থ) হে আল্লাহ! আমাদের এতে বরকত দাও এবং তা আরো বেশি করে দাও আমাদের।

তারপর রাসুলুল্লাহ (ﷺ)  বললেনঃ খাদ্য ও পানীয় উভয়টির স্থলে যথেষ্ট হতে পারে দুধ ছাড়া এমন কিছু আর নেই। – [তিরমিযী ৩৪৫৫ (ইফা:)] [ইবনু মাজাহ ৩৩২২]

০২। খাওয়ার পরের দুআ

اَلْحَمْدُ  لِلّٰهِ الَّذِيْ  أَطْعَمَنِيْ  هٰذَا (الطَّعَامَ)، وَرَزَقَنِيْهِ  مِنْ  غَيْرِ حَوْلٍ  مِنِّىْ  وَلَا  قُوَّةٍ

মু’আয ইবন আনাস (রাঃ) থেকে বর্ণনা করেছেন যে, রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ যে ব্যক্তি খাওয়ার পর এ দু’আ পাঠ করবেঃ (অর্থ) ‘ সমস্ত প্রশংসা ঐ আল্লাহর জন্য, যিনি আমাকে খাওয়াইছেন এবং আমাকে এ রিযিক দিয়েছেন,আমার চেষ্টা ও শক্তি ব্যতিরেকে।“ তার জীবনের আগের পরের সব গুনাহ মাফ করে দেয়া হবে।

আর যে ব্যক্তি নতুন কাপড় পরিধান করে এ দু’আ পড়বেঃ ( অর্থ) সমস্ত প্রশংসা ঐ আল্লাহর জন্য , যিনি আমাকে পড়িয়েছেন এবং এর ব্যবস্থা করে দিয়েছেন আমার শক্তি ও চেষ্টা ছাড়া।”  তার আগের ও পরের জীবনের সব গুনাহ মাফ করে দেয়া হবে। [আবু দাউদ ৩৯৮২(ইফা:)] [তিরমিযী ৩৪৫৮ (ইফা🙂 – ব্রাকেটের অংশ বাদে]

০৩। দস্তরখান উঠানোর দুআ

اَلْحَمْدُ  لِلّٰهِ كَثِيْرًا طَيِّباً مُّبَارَكاً  فِيْهِ، غَيْرَ  مَكْفِىٍّ  وَّلَا مُوَدَّعٍ، وَّلَا  مُسْتَغْنٰى عَنْهُ  رَبَّنَا.

আবূ উমামা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ ( দস্তরখান উঠিয়ে নেওয়ার পর এরূপ দুআ পড়তেনঃ (অর্থ) আল্লাহ্‌র জন্য অসংখ্য প্রশংসা, বরকতময় শুকরিয়া এ খাদ্যের মধ্যে, যা একবার যথেষ্ট নয় এবং পরিত্যাগযোগ্যও নয়, আর না এ হতে অমুখাপেক্ষী হওয়া যায়, হে আমাদের রব ! সমস্ত প্রশংসা তোমারই জন্য।  [আবু দাউদ ৩৮০৬ ইফা]

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*